জুতা কত প্রকার ও কি কি Different Types of Juta

জুতার প্রকারভেদ – জুতা কত প্রকার ও কি কি | 9 Different Types of Shoes

জুতা কত প্রকার ও কি কি: জুতা আবিষ্কার সম্পর্কে আজও কোনো সঠিক তথ্য কেউ দিতে পারেনি। তবে জুতার আবিষ্কার হয়েচিলো প্রাচীনকাল থেকেই। তখন মানুষ কাঠ দিয়ে জুতা তৈরি করতো। ধারণা করা হয়, আজ থেকে প্রায় ৪০০ বছর আগে জুতা আবিষ্কৃত হয়েচিলো। 

ভারতীয় উপমহাদেশে ১৭০০ শতকে ‘কাঠের খড়ম’ নামে এক প্রকার জুতা বেশ জনপ্রিয় ছিলো। এই খড়মগুলোও কিন্তু তৈরি করা হতো কাঠ দিয়ে। 

মানুষের দৈনন্দিন জীবনে চলার জন্য এক আকর্ষণীয় এবং গুরুতর প্রয়োজনীয় পণ্যের নাম জুতা। জুতা আবিষ্কৃত হয়েছিল মূলত মানুষের পা কে বিভিন্ন প্রকার ধুলাবালির হাত থেকে রক্ষা করতে। এটি শুধুমাত্র মানুষের নিরাপত্তা জোগায় না বরং এটি সৌখিনতারও একটি বিরাট অংশ। 

জুতার স্টাইল, ধরণ, সুবিধা এবং দামের দিক থেকে জুতা হরেক রকমের হয়। তবে যায় বলেন না কেনো বর্তমানে বিশ্ববিখ্যাত ব্যান্ডের জুতাই মানুষের কাছে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়। জুতোর ধরন ও ডিজাইন সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে প্রতিনিয়ত বদলায়: যেমন কোনো জুতোয় উঁচু হিল থাকতে পারে, বা নাও পারে। 

আজকে আমরা জুতা কত প্রকার ও কি কি এক কথায় জুতার প্রকারভেদ সম্পর্কে কথা বলব। জুতা কত প্রকার ও কি কি? প্রকৃতপক্ষে পৃথিবীতে কত প্রকার জুতা রয়েছে সে সম্পর্কে আমি আসলে সঠিক তথ্য আপনাদেরকে দিতে পারব না তবে আপনাদের সাথে আমার জানা কয়েক প্রকার জুতা সম্পর্কে আলোচনা করবো ইন্শাল্লাহ।

জুতা কত প্রকার ও কি কি: 

  1. সেন্ডেল / চপ্পল  (Sandals/Slippers)
  2. হাইহিল জুতা (High Heel Shoes)
  3. খড়ম (clogs Shoes)
  4. আধুনিক জুতা (Modern Shoes)
  5. ক্যাজুয়াল জুতা (Casual Shoes)
  6. ব্র্যান্ডের জুতা  (Brand Shoes) 
  7. চামড়ার জুতা/লেদারের জুতা (Leather Shoes)
  8. ব্যালে ফ্ল্যাট (Ballet Flats)
  9. বুট জুতা (Boot Shoes)

1. সেন্ডেল/চপ্পল (Sandals/Slippers)

সেন্ডেল / চপ্পল (Sandals / slippers)
সেন্ডেল / চপ্পল (Sandals / slippers)

Regular ব্যবহার করার জন্য স্যান্ডেল সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় একটি জুতা। বিশ্বের প্রায় সব দেশে এই জুতাগুলো available পাওয়া যায়। এই জুতাগুলো পরলে বাইরের ধুলাবালি কিংবা কোনো প্রকার আঘাত থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। এই প্রকারের জুতার ডিজাইন এত বেশী যে গুনে শেষ করা যাবে না।

2. হাইহিল জুতা (High Heel Shoes)

হাইহিল জুতা (High heel shoes)
হাইহিল জুতা (High heel shoes)

সাধারণত হাইহিল জুতা সাধারণ জুতার চাইতে অনেক উঁচু হয় ফলে এই জুতা পরিধান করলে মানুষকে বাস্তবের চাইতে অনেক লম্বা দেখায়। আবার এই জুতা পরলে সামনের দিকে অনেকখানি ঝুঁকে হাঁটতে হয় যার কারণে অনেক রিস্ক নিয়ে হেলেদুলে প্রলোভন জাগানো ভঙ্গিতে হাঁটতে হয়। যা ইসলাম কখনো সমর্থন করে না। হাইহিল জুতা সম্পর্কে আর বেশি কিছু বললাম না কারণ এই জুতা সম্পর্কে পরবর্তী পোস্টে বিশদভাবে আলোচনা করব ইনশাআল্লাহ। 

3. খড়ম (Clogs Shoes)

খড়ম (clogs shoes)
খড়ম (clogs shoes)

সুপ্রাচীন কালে খড়ম অনেক জনপ্রিয় ছিলো। খড়ম মূলত কাঠ দিয়ে তৈরি এক প্রকার পাদুকা। হিন্দি “খড়ৌঙ” শব্দটি থেকে বাংলায় “খড়ম” শব্দটির উৎপত্তি।সংস্কৃত ভাষায় একে পাদুকা বলে। হিন্দুধর্মে এখনো খড়মের ব্যবহার দেখা যায়। 

হিন্দুরা খড়মকে দেবতা ও শ্রদ্ধেয় সাধুসন্তদের পায়ের চিহ্নের প্রতীক বলে মনে করেন। হিন্দুধর্মের পাশাপাশি জৈনধর্মেও ভিক্ষউক সন্ন্যাসী ও সাধুসন্তেরা খড়ম ব্যবহার করতেন। হিন্দুদের মহাকাব্য রামায়ণে খড়মের কথা উল্লেখ রয়েছে।

খড়ম তৈরী করা খুব সহজ। একখণ্ড কাঠ পায়ের মাপে কেটে খড়ম তৈরি করা হয়। সম্মুখভাগে একটি বর্তুলাকার কাঠের গুটি বসিয়ে দেয়া হয় যা পায়ের বৃদ্ধাঙ্গুলি ও পাশের আঙ্গুলটি দিয়ে আঁকড়ে ধরা হয়। বর্তমানে পা আটকে রাখার জন্য কাঠের গুটির পরিবর্তে রাবার খণ্ড ব্যবহার করা হয়। খড়ম পায়ে হাঁটা সহজ নয়। এছাড়াও খড়ম পায়ে হাঁটার সময় চটাশ্‌ চটশ্‌ বেশ শব্দ হয়। 

4.আধুনিক জুতা (Modern Shoes)

আধুনিক জুতা (Modern shoes)
আধুনিক জুতা (Modern shoes)

আধুনিক জুতার স্টাইল, ধরণ, ও দাম অনুসারে প্রতিনিয়ত বদলায়। বিশেষ করে বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠানে কিংবা বড় কোনো উৎসবে অনেক সুন্দর সুন্দর বাহারী ডিজাইনের জুতার কালেকশন দেখতে পাওয়া যায়। এ সমস্ত জুতা অনেক সস্তা মূল্যেও পাওয়া যায় আবার অনেক দামী মূল্যেও পাওয়া যায়। তবে এই জুতাগুলো বেশিরভাগ অনেক সুন্দর সুন্দর ডিজানের হয়। 

5. ক্যাজুয়াল জুতা (Casual Shoes) 

ক্যাজুয়াল জুতা (Casual shoes)
ক্যাজুয়াল জুতা (Casual shoes)

Casual shoe এত ভালো মানের জুতা যে, এটা না পরলে আসলে বুজতে পারবেন না। এই casual shoe ছেলে মেয়ে উভয়ের জন্য রয়েছে। এই জুতাগুলো অসম্ভব সুন্দর। এই জুতাগুলো এত বেশি সুন্দর ও আরামদায়ক যে সবাই একবার হলেও কিনার জন্য try করবেন আশা করি। 

6. ব্র্যান্ডের জুতা (Brand Shoes) 

ব্র্যান্ডের জুতা (Brand shoes)
ব্র্যান্ডের জুতা (Brand shoes)

ব্র্যান্ডের জুতার কথা আর কি বলবো। এই জুতা গুলোর চাহিদা এত বেশি যে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। এই জুতাগুলোর design অনেক বেশি সুন্দর এবং দীর্ঘায়ু টেকসইও বটে। তবে এই ব্র্যান্ডের জুতা সাধারণত অনেক দামী হয়।  

7. চামড়ার জুতা/লেদারের জুতা (Leather Shoes) 

চামড়ার জুতা/লেদারের জুতা (Leather Shoes)
চামড়ার জুতা/লেদারের জুতা (Leather Shoes)

অনেকেই আমরা চামড়ার জুতা এবং লেদারের জুতার মধ্যে তফাৎ বুজি না। আসলে চামড়ার জুতা আর লেদারের জুতা মূলত একই। বাংলায় একে চামড়ার জুতা আর ইংরেজিতে একে লেদারের জুতা বলে। 

এখন মূল কথায় আসা যাক তা হলো, চামড়ার জুতার চাহিদা যেমন বেশি তেমনি এটি available সব জায়গায় পাওয়া যায়। কারণ চামড়া জুতা চামড়া থেকে উৎপাদিত হয়। পশুর চামড়া থেকে চামড়া জুতা তৈরি করা হয়। এই পশুর চামড়া তো সচারাচর সব দেশেই পাওয়া যায়। 

তাছাড়া মুসলমান ধর্মে প্রতিবছর ঈদুল-আজহা উপলক্ষে অনেক পশু কুরবানী দিতে হয় যার কারণেও কিন্তু অনেক পশুর চামড়া পাওয়া যায়। তাই এই জুতা গুলো অনেক সস্তা দামেও বিক্রি হয় আবার জুতার ধরণ অনুসারে অনেক দামীও রয়েছে। 

8.ব্যালে ফ্ল্যাট (Ballet Flats) 

ব্যালে ফ্ল্যাট (Ballet Flats)
ব্যালে ফ্ল্যাট (Ballet Flats)

ব্যালে ফ্ল্যাট জুতা অনেক স্টাইলিশ একটা জুতা। এই জুতাগুলোর অনেক বাহারী design রয়েছে। জুতাগুলো দেখতে যেমন সুন্দর তেমনি পরতেও অনেক আরামদায়ক। এই জুতা অনেক আকর্ষণীয় একটি জুতা। 

তবে এই জুতার একটি খারাপ দিক আছে সেটা হলো আপনি যদি এই জুতা পরেন তাহলে আপনার পর্দার বরখেলাফ হবে কারণ ইসলামে পা দেখানো জায়েজ নেই কিন্তু যদি মুজাসহ পরেন তাহলে ইনশাল্লাহ কোনো সমস্যা হবে না।

9.বুট জুতা/কেস জুতা (Boot Shoes)

বুট জুতা (Boot shoes)
বুট জুতা (Boot shoes)

বুট জুতা অসাধারণ একটি জুতার নাম। এটাকে সুরক্ষার জুতাও বলা হয়। এককথায় এটি একটি বেস্ট জুতা। আমি তো মনে করি মেয়েদের খাস ভাবে পর্দা করার জন্য এই জুতার চেয়ে ভালো মানের আর কোনো জুতা হতে পারে না। এমনকি এই জুতার ব্যবহারও অনেক। সকালবেলা জিম করার সময় বা কোথাও ভ্রমণ করার সময় বা বৃষ্টির সময়,খেলাধুলা করার সময় মোটকথা সর্বকাজে আপনি ব্যবহার করতে পারবেন। 

তবে এই জুতার অনেক প্রকারভেদ রয়েছে। যেমন পোষাক জুতা, নিরাপত্তা জুতা, মহিলা ফ্যাশন বুট, সামরিক বুট, সুরক্ষা জুতা, জঙ্গল বুট, নার্সিং জুতো, শিকারের বুট, বৃষ্টি বুট, ক্যানভাস জুতো, কার্যকারণ জুতা, স্নিকার্স (Snickers), Keds তরুণ জুতা ইত্যাদি।

RELATED POST:

Share on pinterest
Share on facebook
Share on twitter
Share on email
Share on linkedin
Share on tumblr
Share on whatsapp
Share on mix